গুজবের বিরুদ্ধে যেভাবে লড়ছে এস্তোনিয়া

সোভিয়েত শাসনামলে স্থাপিত একটি সামরিক মূর্তি সরানোর সিদ্ধান্তকে ঘিরে বিতর্কের কারণে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে ক্ষুদ্র বাল্টিক দেশ এস্তোনিয়ায়। দুই দিন ধরে এস্তোনিয়ার রাজধানী তালিনে চলে দাঙ্গা। বিক্ষোভকারীরা পুলিশের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে, চলে লুটপাট।

এস্তোনিয়ায় অবস্থিত রাশিয়ান ভাষাভাষী সংখ্যালঘু মানুষেরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন যে, অনলাইনের এবং রাশিয়ান নিউজ রিপোর্টে বিভ্রান্তিকর ও মিথ্যা খবর প্রচারণার কারণে এই সহিংসতা বহুগুণে বেড়েছে। এই বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানোটি ছিল বেশ পরিসরে। একটি গোটা দেশের বিরুদ্ধে এটিই প্রথম সংঘটিত কোনো সাইবার অ্যাটাক।

এই সাইবার অ্যাটাকের কবলে পড়ে এস্তোনিয়ার সরকারের ব্যাংক এবং মিডিয়া আউটলেটের সকল ওয়েবসাইট বন্ধ হয়ে যায়। ২০০৭ সালের এই আক্রমণের পর, এস্তোনিয়া এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

দেশটি বিভ্রান্তিমূলক তথ্যের পুনরাবৃত্তি ঠেকাতে গণমাধ্যম সাক্ষরতা শিক্ষাকে তাদের প্রথম ডিজিটাল-সংস্কৃতি এবং জাতীয় নিরাপত্তার অংশ হিসাবে দেখতে শুরু করে। দেশটিতে সাইবার-নিরাপত্তা এখন একটি প্রধান ইস্যু হয়ে উঠেছে, যার মূল লক্ষ্য হলো দেশটির অনলাইন অবকাঠামোকে ভবিষ্যত আক্রমণ থেকে রক্ষা করা।

দেশটি ডিজিটাল আগ্রাসন থেকে নিজেকে রক্ষা করার লক্ষ্যে ভিন্ন কিছু করছে। বাল্টিকের ক্ষুদ্র দেশটি নিজ দেশের নাগরিকদের অবস্থান খুঁজে বের করতে এবং বিভ্রান্তিকর প্রচারণা থেকে সতর্ক থাকতে গণমাধ্যম সাক্ষরতা শিক্ষাকে ব্যবহার করছে।

২০১০ সাল থেকে এস্তোনিয়ান পাবলিক স্কুল-কিন্ডারগার্টেন থেকে হাই স্কুল পর্যন্ত তাদের শিক্ষার্থীদের গণমাধ্যম সাক্ষরতা সম্পর্কে শিক্ষা দিয়ে আসছে। ১০ম গ্রেডের শিক্ষার্থীদেরও বাধ্যতামূলক ৩৫ ঘণ্টাব্যাপী মিডিয়া এবং প্রভাব নামে একটি কোর্স পড়তে হয়, যা বাধ্যতামূলক।

তিনি সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়নের কূটনৈতিক পরিষেবা ইউরোপীয় এক্সটারনাল অ্যাকশন সার্ভিসে পলিসি অফিসার হিসেবে নিযুক্ত এস্তোনিয়া সরকারের প্রাক্তন কৌশলগত যোগাযোগ উপদেষ্টা সিম কুম্পাস বলছেন, গণমাধ্যম সাক্ষরতা শিক্ষা এখন গণিত কিংবা অন্যান্য লেখাপড়ার মতোই গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে গ্রহণ করা হচ্ছে৷

বুলগেরিয়ার সোফিয়ায় অবস্থিত ওপেন সোসাইটি ইনস্টিটিউট সম্প্রতি একটি বার্ষিক গণমাধ্যম সাক্ষরতা সূচক প্রকাশ করেছে। এর প্রোগ্রাম ডিরেক্টর মারিন লেসেনস্কি বলেছেন, গণমাধ্যম স্বাধীনতা এবং শিক্ষার ক্ষেত্রে এস্তোনিয়া উচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। যা বিভ্রান্তিকর তথ্য সঠিকভাবে মোকাবিলা করার জন্য পূর্বশর্ত। তাদের কাছে এখন উন্নত শিক্ষা শক্তিশালী সমালোচনামূলক চিন্তা ও আরও ভালো সত্যতা যাচাই করার দক্ষতা রয়েছে।

/রোমা/৪২

সর্বশেষ

Leave a Reply