চুল কেটে দেওয়া সেই শিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত

পরীক্ষার হলে শিক্ষার্থীদের চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষক প্রভাষক ফারহানা ইয়াসমিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়টির চলমান সকল পরীক্ষা পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে। একইসাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কর্মকান্ত অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য বন্ধ থাকবে। তবে তদন্ত সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

বৃহস্পতিবার রাত ৮ টায় বিশ্ববিদ্যালয়টির সিন্ডিকেটের ১৬তম সভায় (বিশেষ) এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এ সভায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন, সংবিধি, প্রবিধি, নীতিমালা এবং সরকারি কর্মচারী ( শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা-২০১৮ অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্ত ফারহানা ইয়াসমিনের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার কথাও বলা হয়।

সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (অতিরিক্ত দায়িত্ব) প্রফেসর মোঃ আব্দুল লতিফের সভাপতিত্বে সদস্য হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর আবু মোঃ দেলোয়ার হোসেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব-৩ সৈয়না নওয়ারা জাহান এবং রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশের রেজিস্ট্রার মোঃ সোহবার আলী। সভায় উপস্থিত সদস্যবৃন্দ শিক্ষার্থীদের উপর শিক্ষক কর্তৃক এরূপ লাঞ্ছনার জন্য উষ্মা ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ্য, গত ২৫ সেপ্টেম্বর দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত হওয়া পরীক্ষার সময়সূচি নিয়ে ওই বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী প্রক্টর ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনের সঙ্গে কয়েক জন শিক্ষার্থীর বাগ-বিতণ্ডা হয়। এ সময় ওই শিক্ষার্থীদের চুল কেটে নির্দিষ্ট সময়ে পরীক্ষার হলে যেতে বলেন ঐ শিক্ষক। পরদিন পরীক্ষার হলে প্রবেশের সময় ১৪ জন ছাত্র চুল কেটে না আসায় তাদের মাথার সামনের অংশের চুল কেটে দেন ফারহানা ইয়াসমিন।

সর্বশেষ

Leave a Reply