পেটের ভেতর ৩১ প্যাকেট ইয়াবা!

0
35
ইয়াবা একধরনের নেশাজাতীয় ট্যাবলেট। এটি মূলত মেথঅ্যাম্ফিটামিন ও ক্যাফেইন এর মিশ্রণ। বাংলাদেশে সাম্প্রতিককালে এটিকে ব্যাপকহারে মাদক হিসেবে গ্রহণ করা হচ্ছে।। প্রতীকি ছবি।

দেশ ডেস্ক

পেটের ভেতর ৩১ প্যাকেট ইয়াবা বহনের সময় ইয়াবার প্যাকেট গলে গিয়ে এক মাদক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। পেট থেকে ইয়াবা বের করার জন্য গত রবিবার রাতে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হলে রাতেই তার মৃত্যু হয়।

এই মাদক ব্যবসায়ীর নাম আবদুস শুকুর (৩৭)। তিনি কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাজারপাড়া এলাকার বাসিন্দা। কক্সবাজার থেকে পাকস্থলীতে করে ইয়াবা বহন করে আনার সময় তিনি পাবনায় আটক হন।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ মো. নওশাদ আলী জানান, ‘ওই ব্যক্তির পেট থেকে মোট ৩১ প্যাকেট ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে ১৬টি প্যাকেট অক্ষত ছিল। বাকি ১৫টি ফেটে যায়। প্রতিটি প্যাকেটে ৫০টি করে বড়ি ছিল। প্যাকেট ফেটে বড়ি বের হয়ে গলে যাওয়ার কারণেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসিম আহমেদের বরাত দিয়ে রাজশাহী নগরের রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)  ওসি শাহাদাত হোসেন খান জানান, ‘পাবনা হাসপাতাল রোড এলাকা থেকে আরও তিনজনের সাথে শুকুরকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ। ওই সময় তাদের কাছে ১৫০টি ইয়াবা পাওয়া যায়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ এর একপর্যায়ে তারা স্বীকার করেন যে শুকুরের পেটের ভেতর আরও ইয়াবা আছে।’

শাহাদাত হোসেন খান আরও জানান, ‘তার পেট থেকে বড়িগুলো বের করার জন্য প্রথমে পাবনা সদর হাসপাতালে ও পরে রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। রাত ১১টার দিকে শুকুর মারা যান। মারা যাওয়ার পরে তার ময়নাতদন্তের প্রয়োজন পড়ে।

রাজশাহীর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেকের উপস্থিতিতে একজন চিকিৎসক তার ময়নাতদন্ত করেন। এ সময় তার পাকস্থলী থেকে ৩১ প্যাকেট ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করা হয়। প্রতি প্যাকেটে ৫০ টি করে ইয়াবা ছিল।’

শুকুরের লাশ পাবনা থানার উপপরিদর্শক সুব্রতকে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

-ইউএনবি

Leave a Reply