যেভাবে হবে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা

দেশে প্রথমবারের মতো হচ্ছে ১৯ টি সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয়ে ভর্তি পরীক্ষা। কিন্তু কেমন হবে এ ভর্তি পরীক্ষার মানবন্টন? এ নিয়ে ভর্তিচ্ছুদের মধ্যে কোনো সঠিক নির্দেশনা ছিলো না৷ অবশেষে এ পরীক্ষার মানবন্টন প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পক্ষ থেকে৷

গুচ্ছ পদ্ধতির এ ভর্তি পরীক্ষা হবে ১০০ নম্বরের শুধু বহুনির্বাচনি প্রশ্নে। বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক সহ তিনটি বিভাগে আলাদা পরীক্ষা হবে। একজন শিক্ষার্থী শুধু একটিই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। ২০১৯ ও ২০২০ সালে যারা এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন তারাই এ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবেন।

পরীক্ষার মানবন্টন:

মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের বাংলা ৪০ নম্বর, ইংরেজি ৩৫ নম্বর ও আইসিটি ২৫ নম্বরের পরীক্ষা দিতে হবে৷

অন্যদিকে ব্যবসায় শিক্ষা থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের হিসাব বিজ্ঞান ২৫ নম্বর, ব্যবসায় গঠন ও ব্যবস্থাপনা ২৫ নম্বর, ভাষা ২৫ ( বাংলা ১৩, ইংরেজি ১২) ও আইসিটি ২৫ নম্বরে পরীক্ষা দিতে হবে।

বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের ভাষা ২০ (বাংলা ও ইংরেজি ১০ নম্বর করে), রসায়ন ২০ নম্বর , পদার্থ ২০ নম্বর এবং আইসিটি, গণিত ও জীববিজ্ঞানের মধ্যে যেকোনো দুইটি বিষয়ে(প্রতি বিষয়ে ২০) নম্বরে পরীক্ষা দিতে হবে। পরীক্ষায় সময় থাকবে এক ঘন্টা।

তবে বিভাগ পরিবর্তনের জন্য আগের মতো আলাদা পরীক্ষা হবে না। সেক্ষেত্রে মেধাতালিকার শিক্ষার্থীদের নিজ বিভাগের পাশাপাশি অন্য বিভাগেও ভর্তির সুযোগ দেওয়া হবে। তবে পরীক্ষা নির্ভর করছে করোনা পরিস্থিতির উপর। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এলেই পরীক্ষা নেওয়া হবে বলে সভায় জানানো হয়।

এই পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী কাউকে কৃতকার্য বা অকৃতকার্য ঘোষণা করা হবে না। শিক্ষার্থীরা শুধু একটি স্কোর পাবে এবং এই স্কোরের ভিত্তিতে তাদের ভর্তি করানো হবে।

প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা কেন্দ্র থাকবে এবং শিক্ষার্থীরা পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে পারবেন।

উল্লেখ্য, গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেওয়া বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হচ্ছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

সর্বশেষ

Leave a Reply