ক্যাম্পাস ডেস্ক
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশে বন বিভাগের অধীনস্থ  শালবাগানে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট এসে প্রায় ২০ মিনিটের চেষ্টায় এই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
আগুন লাগার খবর পেয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ এলাকার চৌয়ারা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন থেকে একটি ইউনিট এসে আগুন নেভানো শুরু করে।
আগুন নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারে চৌয়ারা ফায়ার স্টেশনের স্টেশন অফিসার মোঃ রাসেল বলেন, ‘আমরা আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে পেরেছি। বড় কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। বাগানের প্রায় অর্ধ কিলোমিটার জুড়ে আগুন ছড়িয়ে পড়েছিল।’
আগুন কিভাবে লাগলো এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘এটি তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে। আপাতত আমরা আগুন নিভিয়েছি।’
স্থানীয়রা জানান, এর আগে প্রায় বিকাল ৩ টা থেকে শালবাগানের ভেতর স্থানে স্থানে আগুন জ্বলতে থাকে। শুরুর দিকে আগুন তীব্র ছিলোনা। তবে সন্ধ্যার দিকে আগুন বাড়তে শুরু করে।
খবর পেয়ে ছুটে আসেন বন বিভাগের দুই বনকর্মী। পাশাপাশি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু শিক্ষার্থীও আগুন নেভানোতে অংশগ্রহণ করেন। পাশাপাশি খবর দেন ফায়ার সার্ভিসকেও।

শালবাগানের আগুনের ভিডিও

সেখানে থাকা কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী চাই মং মারমা বলেন, ‘বাগানে আগুন লেগেছে দেখে ফায়ার সার্ভিসকে ফোন দেই। বাগানের ভেতর অনেক বড় জায়গাজুড়ে আগুন জ্বলছিলো। কিন্তু নির্দিষ্ট এক জায়গায় নয়, বিভিন্ন জায়গায়। আমার মনে হয় ইচ্ছা করে কেউ এই আগুন লাগিয়েছে।’
এদিকে এই এলাকার পর্যটনকে ঘিরে শালবাগানের ভেতর গড়ে উঠেছিল অবৈধ দোকানপাট। সাম্প্রতিককালে শালবাগানের ভেতর থাকা এসব অবৈধ দোকান উচ্ছেদ করে বন বিভাগ। তারই জেরে কেউ আনসার অফিসের সামনের এই বাগানে আগুন লাগাতে পারে বলে দাবি করছেন বনকর্মী ও স্থানীয় কয়েকজন। তবে কেউই গণমাধ্যমে বক্তব্য দিতে রাজি হননি।
/নোবেল

Leave a Reply